Home / প্রশ্নোত্তর / রোজা রেখে ইনহেলার ব্যবহার করার নিয়ম, রোজা ভাঙবেনা
রোজা রেখে ইনহেলার ব্যবহার
রোজায় ইনহেলার ব্যবহারের নিয়ম

রোজা রেখে ইনহেলার ব্যবহার করার নিয়ম, রোজা ভাঙবেনা

আমাদের দেশে শ্বাসকষ্ট আদিকাল থেকেই যন্ত্রণাদায়ক রোগ। আমাদের দেশের এক কোটির অধিক লোক এই মরণ যন্ত্রণায় ভোগে! অনেকের মনেই প্রশ্ন শ্বাসকষ্ট কি, কেন হয়, শ্বাসকষ্টের প্রতিরোধ ও প্রতিকার, এবং রোজায় ইনহেলার ব্যবহার করলে রোজা ভঙ্গ হবে কিনা এই সকল প্রশ্নের উত্তর দিব আজকের এই আরটিকেলে! এছাড়াও রোজা রেখে ইনহেলার ব্যবহার এর নিয়ম সম্পর্কেও আলোচনা করা হবে।

চলুন দেখে আসি এই শ্বাসকষ্ট বা হাঁপানি কি? 

বক্ষব্যাধি বিশেষজ্ঞ দের মতে, শ্বাসকষ্ট বা হাঁপানি একটি মরণ যন্ত্রণাদায়ক শ্বাস নালীর রোগ। এই রোগে রোগীর শ্বাস নালীর ভিতরে স্পর্শকাতরতা তৈরি হয়। আর এই স্পর্শকাতরতা এলার্জির কারনে হয়ে থাকে। 

পাশাপাশি শ্বাসনালীতে খিঁচুনি শুরু হয় আর তখনই শ্বাসকষ্ট বাড়তে থাকে। যে বিষয়গুলো তে শ্বাসকষ্ট বেশি হয়ে থাকে। 

বংশগত কারনে এই রোগ গুলো হয়ে থাকে। 

হাঁপানি মূলত দুই ধরনের যথাঃ এটোপিক এ্যাজমা এবং নন এটোপিক এ্যাজমা। এটোপিক হয় বংশগত কারনে। আর নন এটোপিক সাধারনত এলার্জির কারনে হয়ে থাকে না। মাঝ বয়সী নারী দের মানসিক উত্তেজনা,মানসিক বিষন্নতা রয়েছে তাদের ঐ সময় শ্বাসকষ্ট বেড়ে যায়। 

শ্বাসকষ্ট হওয়ার কারনগুলো কি কি ? 

শ্বাসকষ্ট জনিত রোগে সাধারনত ধুলাযুক্ত পরিবেশে গেলে এবং সেই ধুলির কোনা যদি শ্বসনতন্ত্রে প্রবেশ করে , তাহলে সাথে সাথে শ্বাসকষ্ট শুরু হয়। 

খাবার এর ক্ষেত্রে এলার্জি জনিত খাবার খেলে ও এই ধরনের কষ্ট হতে পারে। যেমন চিংড়ি মাছ, লাউ,বেগুন,পাকা ফল,ইলিশ মাছ,লতা,কচু,মশুরের ডাল, গরুর মাংস ইত্যাদি খাওয়ার পর শ্বসনতন্ত্রের নালীর ভিতরে স্পর্শকাতরতা সৃষ্টি হয় এবং শ্বাসনালীর ভিতরে শরু হয়ে যায় আর তখনি শ্বাস নিতে কষ্ট হয়। 

খেলাধুলার ক্ষেত্রে একটু দৌড়াদৌড়ি করলেই হাঁপানি দেখা দিতে পারে। 

পুরোনো ঘরের কাপড় চোপড় এর ধুলিকনা বই এর ধুলি কনা নাকের ভিতর দিয়ে প্রবেশ করে এবং তা শ্বাসনালী তে প্রবেশ করে। আর তখন শ্বসন তন্ত্রের যন্ত্রণা শুরু হয়। হাঁচি-কাশি, সর্দিও তখন শুরু হয়। 

এগুলো থেকে দূরে থাকলেই আপনি সুস্থ থাকতে পারবেন। 

শ্বাসকষ্টের প্রতিরোধ, প্রতিকার এবং শ্বাসকষ্টে রোজা  ইনহেলার এর ব্যবহার। 

সাধারণত শ্বাসকষ্টের রোগীরা ভাবেন ইনহেলার নিলে ক্ষতি হয় বা সেটা সারা জীবন বয়ে বেড়াতে হয়! কিন্তু বিশেষজ্ঞ দের মতে ইনহেলার ব্যবহার শুরু করলে সারা জিবন ব্যবহার করতে হবে তার কোনো বাধ্যবাদকতা নেই। ট্যাবলেট বা ইঞ্জেকশন এর চেয়ে ইনহেলার সব চাইতে কার্যকরি। কারন ইনহেলার শুধু মাত্র আপনার গলা পর্যন্ত যায় এটা সারা শরিরে প্রভাব ফেলে না। আর কার্যকরিতা ও দ্রুত হয়। রোজায় ইনহেলার ব্যবহার ।

যদি ইনহেলার না নিতে চান সে ক্ষেত্রে আপনি প্রাপ্ত বয়স্ক হলে মন্টেলুকাস্ট-১০ আর অপ্রাপ্ত বয়স্কদের জন্য মন্টেলুকাস্ট-৫ ট্যাবলেট প্রতিদিন একটা করে খাওয়া যেতে পারে। 

রোজায় ইনহেলার ব্যবহার করার নিয়মঃ

চলুন দেখে আসি রমজান মাসে কিভাবে আপনি ইনহেলার ব্যবহার করবেন! আমাদের দেশ ধর্মপ্রান মুসলিমদের দেশ আর যেহেতু এক কোটির বেশি মানুষ আর সবাই চায় রোজা রাখতে। এটি একটি ফরজ ইবাদত। 

ইনহেলার এর ব্যবহার বিধি টা একটু পরিবর্তন আনতে হবে রোজার সময়! যেমন সেহেরির সময় খাওয়ার পর ২ পাফ ইনহেলার ব্যবহার করবেন এবং ইফতারের পর ২ পাফ ব্যবহার করবেন। তাতেই আপনি লম্বা সময় ধরে সুস্থ থাকতে পারবেন। 

আরও পড়ুনঃ জুম্মার নামাযের নিয়ম ও নিয়ত বিস্তারিত।

এখন মূল সমস্যা হলো যদি রোজা রাখা অবস্থায় যদি শ্বাসকষ্ট দেখা দেয় তখন কি করবেন। 

আলেম রা এই বিষয়ে স্পষ্ট বলেছেন, রোজা রাখা অবস্থায় যদি কেউ ইনহেলার নেয় তাহলে তার রোজা ভাঙ্গবে না! কারণ ইনহেলার তো খাদ্যের পরিপূরক নয়! তারপর ও যদি কেউ নিতে না চান তাহলে ইনহেলার নেয়ার সময় গিলে ফেলবেন না গলা পর্যন্ত নিবেন! এবং সাথে সাথে থু থু ফেলে দিবেন! অথবা মন্টেলুকাস্ট ট্যাবলেট ব্যবহার করবেন। 

রোজায় শ্বাসকষ্ট থেকে মুক্তির জন্য কিছু উপদেশঃ 

ইফতারের মেনুতে ভাজাপোরা খাবার যত কম রাখবেন ততই ভালো! সাধারণত দোকানের তেল ৪-৫ দিনের পোড়া তেল থাকে আর সেই তেল যে কোনো মানুষের জন্য ক্ষতিকর! আর বাসায় যদি তেল থেকে যায় সেক্ষেত্রে তেল ফেলে দিন! আর তাই রোজার দিনে এইসব খাবার থেকে বিরত থাকুন যেগুলো খেলে আপনার এলার্জি বেড়ে যায় এবং শ্বাসকষ্ট বেড়ে যায়। 

রোজার দিন আমরা ভোরা পেট কখনোই খাব না এটা শুধু শ্বাসকষ্ট রোগীদের ক্ষেত্রেই না সবার জন্যই! কারন রোজা মানে সব কিছু পরিমিত ভাবে খাওয়া এবং সব পাপ কাজ থেকে দূরে থাকা।

সকল পোস্টের আপডেট পেতে আমাদের ilmuddin – ইলমুদ্দিন ফেসবুক পেজে লাইক দিন।

Check Also

ভাগ্য বলতে কিভাবে পরিবর্তন করা যায়

ভাগ্য বলতে কিছু আছে ? কিভাবে ভাগ্যের পরিবর্তন করা যায় ?

ভাগ্য বলতে যে কিছু আছে অনেকেই সেই বিষয়টা মানতে চান না রিসেন্ট সার্ভে তে দেখা …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *